জগন্নাথপুরে রাত পোহালেই ভোট উৎসব ॥ কে হচ্ছেন পৌর পিতা

 

মো.শাহজাহান মিয়া ::

 

১৬ জানুয়ারি সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর পৌরসভার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। রাত পোহালেই শুরু হচ্ছে ভোট উৎসব। কে হচ্ছেন পৌর পিতা ও সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ডের অভিভাবক। এ নিয়ে পৌরবাসীর মধ্যে চলছে নানা জল্পনা-কল্পনা। ১৫ জানুয়ারি শুক্রবার থেকে প্রচার-প্রচারণা বন্ধ রয়েছে। প্রচারণা বন্ধ থাকলেও নিজেদের বিজয় নিশ্চিতের লক্ষে প্রার্থীরা বিভিন্ন কৌশল চালিয়ে যাচ্ছেন। আজ কাটবে নির্ঘুম রাত। পাড়া-মহল্লায় বসানো হবে প্রার্থীদের পাহারাদার। যাতে এক প্রার্থী অন্য প্রার্থীর এলাকায় গিয়ে যে কোন ভাবে ভোটে ভাগ বসাতে না পারেন। যে কারণে সবাই রয়েছেন সতর্ক অবস্থানে। সব মিলিয়ে আজ রাতের কৌশলে যে এগিয়ে থাকবেন, সেই নির্বাচিত হবেন। এমন অভিমত ভোটারদের।
এদিকে-নির্বাচনটি শান্তিপূর্ণ ভাবে সম্পন্নের লক্ষে সব ধরণের প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে বলে জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মুজিবুর রহমান জানান। ৯টি ওয়ার্ড নিয়ে গঠিত জগন্নাথপুর পৌরসভায় মোট ভোটার সংখ্যা ২৮৬৪২ জন। ইভিএম পদ্ধতিতে এই প্রথম বারের মতো ভোট গ্রহণ হবে। ১২টি ভোট কেন্দ্রের ৭৫টি বুথে সকাল ৮ থেকে বিকেল ৪ টা পর্যন্ত একটানা ভোট গ্রহণ চলবে। ভোটারদের স্বাস্থ্যবিধি মেনে ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে হবে। প্রতিটি বুথে ইভিএম সরঞ্জাম বসানো হচ্ছে। দায়িত্ব বুঝিয়ে দেয়া হচ্ছে ভোট গ্রহণ কর্মকর্তা ও আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীকে। নির্বাচনের দিন পৌর এলাকায় সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়া সব ধরণের যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকবে।
এবারের নির্বাচনে মেয়র পদে ৫, নারী কাউন্সিলর পদে ৯ ও পুরুষ কাউন্সিলর পদে ৩৯ জন সহ মোট ৫৩ প্রার্থী প্রতিদ্ধন্ধিতা করছেন। তারা হলেন মেয়র পদে আ.লীগ মনোনীত প্রার্থী বর্তমান পৌর মেয়র মিজানুর রশীদ ভূইয়া (নৌকা), স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী সাবেক পৌর মেয়র আক্তারুজ্জামান আক্তার (চামচ), বিএনপি মনোনীত প্রার্থী হারুনুজ্জামান (ধানের শীষ), স্বতন্ত্র প্রার্থী আমজদ আলী শফিক (মোবাইল ফোন) ও স্বতন্ত্র প্রার্থী বিষ্ণু চন্দ্র রায় (জগ)। এর মধ্যে মিজান-আক্তার দ্বি-মুখি লড়াই হবে বলে ভোটারদের ধারণা।
এছাড়া ১, ২ ও ৩ নং সংরক্ষিত ওয়ার্ড থেকে বর্তমান নারী কাউন্সিলর আয়ারুন্নেছা (আনারস) ও শিল্পী বেগম (চশমা)। ৪, ৫ ও ৬ নং সংরক্ষিত ওয়ার্ড থেকে সাবেক নারী কাউন্সিলর বাহারজান বিবি (জবাফুল), পিয়ারা বেগম (চশমা) ও অর্চনা ধর (আনারস)। ৭, ৮ ও ৯ নং সংরক্ষিত ওয়ার্ড থেকে বর্তমান নারী কাউন্সিলর নার্গিস ইয়াসমিন (আনারস), সাবেক কাউন্সিলর সুর্বনা শর্মা (চশমা), বাবলী বেগম (টেলিফোন) ও ফুলবানু বেগম (জবাফুল)।
সাধারণ ১ নং ওয়ার্ড থেকে বর্তমান পৌর কাউন্সিলর খলিলুর রহমান (পানির বোতল), আবদুল ওয়াহাব (টেবিল ল্যাম্প), শাহিন আহমদ (পাঞ্জাবি), আবদুল বাশির (উটপাখি), ছালিক মিয়া (ব্ল্যাক বোর্ড) ও আলাউর রহমান (ডালিম)। ২ নং ওয়ার্ড থেকে জিতু মিয়া (উটপাখি), মল্লিক এমরান (পানির বোতল) ও এমদাদুল হক (পাঞ্জাবি)। ৩ নং ওয়ার্ড থেকে বর্তমান পৌর কাউন্সিলর তাজিবুর রহমান (পাঞ্জাবি), লিটন মিয়া (পানির বোতল) ও আলাল হোসেন (উটপাখি)। ৪ নং ওয়ার্ড থেকে বর্তমান পৌর কাউন্সিলর দিলোয়ার হোসেন (পানির বোতল), সাবেক কাউন্সিলর সুহেল আমিন (ব্ল্যাক বোর্ড), কামাল হোসেন (পাঞ্জাবি), তাইফুর রহিম নাহিদ (ডালিম), আবদুল কাইয়ূম বাবর (টেবিল ল্যাম্প), ফজর আলী (উটপাখি), কবির মিয়া (গাজর) ও বাবুল আহমদ বাবুল (ব্রিজ)। ৫ নং ওয়ার্ড থেকে বর্তমান পৌর কাউন্সিলর ও প্যানেল মেয়র শফিকুল হক (পানির বোতল), আবদুল কাইয়ূম (উটপাখি) ও মাঈন উদ্দিন (পাঞ্জাবি)। ৬ নং ওয়ার্ড থেকে কৃষ্ণ চন্দ্র চন্দ (পানির বোতল), আবদুল কাদির (উটপাখি), গোবিন্দ দেব (পাঞ্জাবি) ও আলী হোসেন (ডালিম)। ৭ নং ওয়ার্ড থেকে বর্তমান পৌর কাউন্সিলর ও প্যানেল মেয়র-২ সুহেল আহমদ (উটপাখি), ছালিক আহমদ (ডালিম), শেখ ইলিয়াছ আলী (পানির বোতল) ও সৈয়দ জিতু মিয়া (পাঞ্জাবি)। ৮ নং ওয়ার্ড থেকে বর্তমান পৌর কাউন্সিলর আবাব মিয়া (পাঞ্জাবি), সাফরোজ ইসলাম মুন্না (পানির বোতল), শামীম আহমদ (উটপাখি) ও শাহানুল হক (ডালিম)। ৯ নং ওয়ার্ড থেকে বর্তমান পৌর কাউন্সিলর দিপক গোপ (ব্ল্যাক বোর্ড), ছমির উদ্দিন (ডালিম), আবু তালেব (উটপাখি) ও আনহার মিয়া (পানির বোতল) প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্ধিতা করছেন।

 

Print Friendly, PDF & Email

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *